চট্টগ্রাম, , শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০

কাফকোর সিএসআর ফান্ডের অর্থ বরাদ্দে অনিয়মে ক্যাব’র ক্ষোভ

প্রিয়সংবাদ ডেস্ক  ২০২০-০৮-০৯ ১৮:৫৯:০৮   বিভাগ:

মো.মুক্তার হোসেন বাবু:: চট্টগ্রামে অবস্থিত বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান কর্ণফুলী ফার্টিলাইজার কোম্পানী(কাফকো)’র করপোরেট সামাজিট দায়বদ্ধতা(সিএসআর) খাতে সিএসআর নীতিমালাকে উপক্ষো করে চট্টগ্রামে খরচ না করে বরিশালে কবরস্থান উন্নয়নসহ, বিমানে বরিশাল আসা-যাওয়া ও খাবারের রেস্তোরায় খাবার বিল বাবত কোটি টাকা খরচ করার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে সামাজিক দায়বদ্ধতার টাকা এভাবে নয়ছয় করে ব্যয় করায় দেশে করপোরেট খাতে সুসাশন প্রশ্নবিদ্ধ করা হলো। একই সাথে কাফকোর মতো শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের ফলে চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদী ও দক্ষিন চট্টগ্রামে বিপুল পরিবেশ বিপর্যয় হয়েছে। কর্ণফুলী নদীর তীরে সাধারণ জনগনের জীবন জীবিকা ও পরিবেশ উন্নয়নে কিছুটা হলেও ক্ষতি পুরণ না দিয়ে সুদর বরিশোলের বিভিন্ন জায়গায় সিএসআর তহবিলের অর্থ ব্যয় করা দুর্নীতি ও অনিয়মের সামিল। এ ধরনের অনিয়মের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) চট্টগ্রাম।
গতকাল রোববার কাফকোর সিএসআর ফান্ডের অর্থ স্থানীয় এলাকায় ব্যয় না করে সুদুর বরিশালে নামে বেনামে বিভিন্ন ভাবে ব্যয় করায় উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্র্রকাশ করে এক বিবৃতিতে ক্যাব কেন্দ্রিয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন, ক্যাব চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাধারন সম্পাদক কাজী ইকবাল বাহার ছাবেরী, ক্যাব মহানগরের সভাপতি জেসমিন সুলতানা পারু, সাধারণ সম্পাদক অজয় মিত্র শংকু, যুগ্ন সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম ও ক্যাব চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল মান্নান উপরোক্ত দাবি জানান।
বিবৃতিতে ক্যাব নেতৃবৃন্দ বলেন, সিএসআর তহবিলের অর্থ ব্যয় করার সুনিদিষ্ঠ নীতিমালা আছে। আর কাফকো কর্ণফ‚লী নদীর ওপারে প্রতিষ্ঠা করায় অনেক মানুষের বসতি ও জীবন-জীবিকা হারিয়েছেন। একই সাথে কাফকোর কারনে কর্ণফুলী নদীর মারাত্মক পরিবেশ বিপর্যয় হয়েছে। কর্ণফুলী নদীর দুষণ মারাত্মক অবস্থায় গিয়ে পৌঁছেছে। আর সিএসআর তহবিলের অর্থ কাফকোর শিল্প এলাকায় এ সমস্ত ক্ষয় ক্ষতি পুরনে ব্যয় হওয়া দরকার ছিলো। সাবেক শিল্প সচিব ও কাফকোর বিদায়ি বোর্ড চেয়ারম্যানকে খুসী করতে বিভিন্ন খাতে এ অর্থ ব্যয় করার অর্থ সিএসআর তহবিল বরাদ্ধে কাফকো অসদউপায় ও অনিয়মের আশ্রয় নিয়েছেন। যা দুর্নীতির সামিল। আর এ ধরনের ঘটনায় দেশে করপোরেট সেক্টরে সুশাসনকে প্রশ্নবিদ্ধ করবে এবং আর্ন্তজাতিক বিনিয়োগকে বিমূখ করবে। যা ভবীষ্যতে দেশের শিল্প ও বৈদশিক বিনিয়োগে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।
বিবৃতিতে ক্যাব নেতৃবৃন্দ উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন করপোরেট সুশাসনের অভাবে দেশে কর ফাঁকি, কর্মী নিয়োগে অনিয়ম, কর্মী ব্যবস্থাপনায় অসন্তোষের ঘটনা বেড়ে যাচ্ছে। যার চুড়ান্ত পরিনাম শিল্পে উৎপাদন হ্রাস। পরিচালনা পর্ষদে দায়িত্বে নিয়োজিতদের মাঝে অপেশাদার ও অস্থানীয় হবার কারনে এলাকায় জনগনের প্রতি সহমর্মিতা ও দায়বদ্ধতা থাকে না। যার দীর্ঘেিময়াদী ফল হিসাবে উক্ত প্রতিষ্ঠানের টেকসই উন্নয়ন ধারা ও উৎপাদন বাধাগ্রস্থ হবে।



ফেইসবুকে আমরা