চট্টগ্রাম, , বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০

সরকার দুর্নীতিকে সংরক্ষণ করার জন্য পরিপত্র জারি করেছে: রিজভী

প্রিয়সংবাদ ডেস্ক  ২০২০-০৮-০৬ ২০:৫৩:১১   বিভাগ:

 

প্রিয় সংবাদ ডেস্ক :: ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নতুন যে পরিপত্র জারি করেছে তাতে প্রমাণিত হয়েছে সরকার দুর্নীতিকে সংরক্ষণ করতে চায়’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। বৃহস্পতিবার সকালে কুড়িগ্রামে নিজ বাসভবন থেকে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, স্বাস্থ্য খাতে এক ভয়ঙ্কর দুর্নীতি বিরাজ করছে। দুর্নীতিতে স্বাস্থ্য খাত ধ্বংস হয়ে গেছে। এর মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় একটি পরিপত্র জারি করেছে, সরকারি অনুমতি ছাড়া কোনো হাসপাতালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান পরিচালনা করতে পারবে না। এর মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে সরকার দুর্নীতিকে সংরক্ষণ করতে চায়।

তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান পরিচালনা না করলে রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ এবং জেকেজির চেয়ারম্যান ডাক্তার সাবরিনার দুর্নীতি প্রকাশ পেত না। দুর্নীতির সঙ্গে যারা জড়িত তারা সরকারি দলের লোকজন। তাদের সেফটির জন্যই এই পরিপত্র জারি করা হয়েছে। এর ফলে সামনের দিনগুলো স্বাস্থ্য খাতে আরও ভয়ঙ্কর হবে। মানুষ কোনো সেবাই পাবে না। সর্বত্র দুর্নীতির স্বর্গরাজ্যে পরিণত হবে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, কিছু নদীর পানি কমতে থাকলেও অনেক এলাকায় বন্যার অবনতি হয়েছে। ইতোমধ্যে বন্যায় মানুষের ঘরবাড়ি গবাদিপশু ভেসে গেছে। ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। এক্ষেত্রে সরকার কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। ত্রাণ এবং বন্যা মোকাবেলায় নানা ধরনের পদক্ষেপ নেয়ার কথা থাকলেও আমি তা দেখেনি। বানভাসি মানুষ খাদ্যের অভাবে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

তিনি বলেন, কুড়িগ্রামে করোনার ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করছে। মানুষ মারা যাচ্ছে। যেখানে ঢাকাতে কোনো চিকিৎসা নেই সেখানে কুড়িগ্রামে প্রত্যন্ত অঞ্চলে চিকিৎসা পাওয়া কল্পনাও করা যায় না। এখানে চিকিৎসা ব্যবস্থা না থাকায় নরকতুল্য বিরাজ করছে। করোনা মোকাবেলায় কোন ধরনের প্রতিকারের ব্যবস্থা নেই।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, দুর্নীতিতে স্বাস্থ্য খাত ধ্বংস হওয়ার পরও সরকারের টনক নড়েনি। করোনা মোকাবেলায় সরকারের কোনো প্রতিকারের ব্যবস্থা ছিল না। কার্যত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি- দেশবাসী তা দেখেছে। চিকিৎসা না পেয়ে মানুষ রাস্তায় অ্যাম্বুলেন্সে মারা গেছে। সরকার মানুষের সেবা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।



ফেইসবুকে আমরা